টাউনের শিক্ষিত কোচরাজবংশী কামতাপুরী সমাজত আঈ ভাষার জাগরণ আসির ধৈরচে! 

একটা জিনিস কোনোদিন ঘোংটে দেখিচেন কোচরাজবংশী কামতাপুরী বেশীরভাগ শিক্ষিত মানষিয়ে সাধারণ ভাবে কথোপকথন করে বাংলাত, খালি রাস্তাত বা হাট বাজারত নোমায় ফেসবুক বা সোসাল মিডিয়াতও। অথচ উমারলার সগায় সগাকে চেনে বা জানে কোচরাজবংশী কামতাপুরী মানষি হিসাবে।

সাধারণত রাস্তাত বা হাট বাজারত একজন কোচরাজবংশী কামতাপুরী মানষি আর একজন কোচরাজবংশী কামতাপুরী মানষির সাথত বাংলাতে (অচিনাজানা হৈলে) । চিনাজানা হৈলেও যে আঈ ভাষাতে কথোপকথোন হয় সেটাও নাহয়। গেরামের হাটত বা রাস্তাত এই চিত্রটা খানেক আলদা তবে ঐ জাগাতো ব্যাপারটা একে নাখান যেদু তথাকথিত শিক্ষিত মানষি থাকে।এই ধরো কোনো এখনা গুরু গম্ভীর ল্যাখা, বিশেষ ব্যক্তিত্বের রচনা ল্যাখা কোচরাজবংশী কামতাপুরী সম্বন্ধীয়। দেখিবেন বেশীরভাগ ল্যাখায় বাংলাতে। অথচ সমাজের তথাকথিত সেই শিক্ষিত মানষিলায় এদি ফির আঈ ভাষা নিয়া সক্রিয় আন্দোলন করিচে বা কাংও আন্দোলন করে নাই অথচ ল্যাখালেখি করে ভাষার সাংবিধানিক মর্যাদা পাবার জন্যে।তালে যেদু দ্যাখা যায় বা ব্যাপারটা খানেক যেদু ঘোংটাঘুংটি করা যায় এমন দাড়ায় –

1. কোচরাজবংশী কামতাপুরী তথাকথিত বেশীরভাগ শিক্ষিত মানষি বাড়িত আঈ ভাষা ব্যবহার করেনা। ফলস্বরূপ বাড়ির ছাওয়ালা আঈ ভাষা শিখির পায় না আর পরবর্তীতে আগ্রহ দ্যাখায় না শিখিবার।

2. শহরের পরিবেশত সামাজিক ভাবে ছাওয়ালা আঈ ভাষা শোনেনা বা সেই স্কোপ নাই। একমাত্র শহুরে স্বজাতি সাগাই সোদোর ছাড়া। আর সাগাইর বাড়িত গেইলেও ঐ অ্যাকে অবস্থা।

3. গেরামের বাড়িলাত আঈ ভাষার ব্যবহার এলাও চলে তাও বাড়ির শিয়ান মানষিলার জন্যে আর খাটি খাওয়া মানষিলার জন্যে (যায় গেরামতে বই পড়িচে বা পড়ে নাই, চাকরী পায় নাই, চাষবাস করে) । কিন্তুক যেদিন সেই শিয়ান মানষিলা থাকিবেনা সেদিন কায় উবি নিয়া বেড়াইবে আঈ ভাষার ডেলি?

4. যে ব্যক্তি শিক্ষিত চাকরীজীবী, গেরামত মানষি হৈচে গেরামত রয়া কোনো এক স্কুলত /অফিসত চাকরী করে। বাড়ির গিন্নিও গেরামের থাকি, শিক্ষিত। উমার বাড়িত দেখিবেন আঈ ভাষার চল আছে। অথচ সেই ব্যক্তির ছোটোবেলার বন্ধু  একসাথত গেরামত মানষি হৈচে আর বন্ধু চাকরী পায়া শহরত বাড়ি করিচে, উমার গিন্নিও হয়ত শহরবাসী ছিল – দেখিবেন উমার বাড়িত আঈ ভাষার কোনো চল এ নাই, ছাওয়া ছোটোলাও শেখে নাই বা বাপ মাও ইচ্ছা করি শিখাই নাই আঈ ভাষা। বন্ধু – বন্ধু যেলা রাস্তাত দ্যাখা হয় সেলা উমার কথোপকথোন হয় আঈ ভাষাত। এক বন্ধু বাড়িত আসিয়া আঈ ভাষা ভুলি যায় আর এক বন্ধু ভোলেনা। কোচরাজবংশী কামতাপুরী মানষির কামতাপুরী /রাজবংশী ভাষা ব্যবহারের এই হৈল্ একনাকান বিচিত্র রূপ। 

5. সব থাকি আশ্চর্যের বিষয় হৈল্ সোসাল মিডিয়াতও যেলা এক কোচরাজবংশী কামতাপুরী মানষি আর এক কোচরাজবংশী মানষির (সাগাই না হৈলে দোনেজনে দোনে জনকে জানে যে ইমরা এই মাটির মানষি, সেইটাও সোসাল মিডিয়ার দৌলতে) সাথত বাংলাতে কথোপকথন করে আর গিজ্জি ওঠে আঈ ভাষা স্বীকৃতির জন্যে।

6. ভাওয়াইয়া গানের আগত বাংলাত ভুমিকা দেওয়ার ব্যাপারতো বারেবারে কওয়া হৈচে যাতে চখু খোলে। এলা আরো আর এখনা সমস্যা দ্যাখা যাবার ধৈরচে। আঈ ভাষার চ্যানেল পোশনো করে নিজের ভাষাত আর যায় বক্তব্য রাখে উমায় (কোচরাজবংশী কামতাপুরী মানষিএ) কয় বাংলাত। অনেক শহুরে বুড়ামাটা মানীগুনী মানষি তো আগতে কয়া দেয় “আমি না ঠিক এই ভাষাটা বলতে পারি না”। নৈজ্যা শরমের মাথা খায়া থুইচে, একবার কয়ও না যে “আমি খুবই লজ্জিত বোধ করছি নিজের মাতৃভাষা বলতে না পারার জন্য (বাংলাতে) “।

7. আসলে সমস্যাটা গোড়োতে, আগের বুড়া থাকি এলাকার গাবুর সগায় বই পড়িচে বাংলাতে আর বাড়িত কথা কৈচে নিজের আঈ ভাষাত। সমস্যা সগায় বুঝির পাইচে যে আঈ ভাষাত বই পড়ির না পাইলে কেমন সমস্যা হয়। হয়ত কিছু তথাকথিত বোদ্ধা কৈবে এটা কোনো সমস্যায় নাহয়, কারণ ঐ বোদ্ধা বুঝির না পাইলেও তার এক দুই প্রজন্ম আগের মানষিটা ঠিক বুঝিচিল সমস্যাটা, কিন্তুক কবার পায় নাই কাংওকো, কাকে বা কৈবে। ভাবি নিচিল এইটায় নিয়ম – বই পড়া মানে বাংলা ভাষাত আর কথা কওয়া, ভাওয়াইয়া গান করা, শিদলের বর্ণনা দেওয়া এইলা কুল্লায় নিজের আঈ ভাষাত।

আজি একজন যেমন মোক পুছিলেক “নমস্কার, আপনি রাজবংশী সমাজ-সংস্কৃতি সম্পর্কে সচেতন, সেকারনে আপনার কাছ থেকে একটি তথ্য জানতে চাই। আমি জানতে চাই আমাদের মাতৃভাষা রাজবংশী ভাষার নিজস্ব লিপি কি রয়েছে? এবিষয়ে যদি আপনি তথ্য দেন তাহলে বিশেষ উপকৃত হব।”
মুইও ইংরাজীত উত্তর দিলুং, কলুং “I think your mother tongue is Bengali”

ব্যাপারটা হৈল্ মোরটে আঈ ভাষার (যদিও মোর ব্যক্তিগত মত ভাষার নামটা বেশী উপযুক্ত কামতা বা কামতাপুরী বা কামতাবেহারী – এক কথায় জাগা সূচক, logical, rational/ Overall i expect one name solution may be it compound form/ ) লিপি জানির চাইল্ কিন্তুক ল্যাখাটা লেখিল্ বাংলাত। মুই উমার দোষ দেখংনা, কারণ উমরা হয়ত ছোটো থাকি এমনে দেখি আসিচে বড়লার থাকি। যেটি ভাষা অ্যাকাডেমির, ভাষা আন্দোলনের তথাকথিত তাবড় তাবড় মানষিলা এমনে ল্যাখে উমাক দেখি আর পারিপার্শ্বিক পরিবেশ বা সোসাল মিডিয়াত দেখি গাবুর চেংরা চেংরিলা কি শিখিবে?তবে গাবুর চেংরা চেংরিলা চাইলে এই নিয়মের  পরিবর্তন আনিরে পায়। এটা কোনো বড় সমস্যা নাহয়। ইয়ার থাকিয়াও বড় বড় সমস্যাত কোচরাজবংশী কামতাপুরী মানষি ভুগিচে বা ভুগির ধৈরচে।

তুফানগঞ্জের (দড়িয়া বালাই রোড) পুরানা মানী মানষি স্বর্গীয় যোগেন ঈশোর এর এখান কবিতা (ভোটের কবিতা) 

কান ঝলমলী আসিয়া ডেকাইল

জলেশ্বরী হে বাই

কথা একনা কওয়ার আসিনু

ঘরত আচেন না নাই। 

ভোটত বোলে দেবেন ঈশোরক

ফেলের বাদে হাইর

কায় বোলে তোর জার ঘোংটেয়া

শিল্লুক কৈরলেক বাইর। 

বিষ্টা তোলে বিষ্টার গোন্দ

খলে তোলে দোষ

সুজনে কয় শাস্ত্রর কথা 

কুজনে পায় রোষ। 


এইনাকান করি ম্যালা মন্তর আছে যেমন বিষ ঝাড়ার, পেঁচা ক্ষেদেবার, জলকষা, কুমলী ঝাড়ার মন্তর, সরস্বতী ঠাকুর বন্দনার মন্তর। যত মন্তর আছে কুল্লায় বোল হামার কামতাপুরী /রাজবংশী ভাষাত।সরস্বতী বন্দনার মন্তর যেমন – 

সরস্বতী বন্দং নীলবর্ণ বটে অটে

গালাত গজমতি হার

দেও মাও সরস্বতী বিদ্যার ভার। 

বিদ্যা দিয়া না করিবু হীন

মোক করিবু রাজ পন্ডিত ।

খড়ি খড়ি চন্দন খড়ি

পন্ডিতে মারিলেক পাক

ওঠ খড়ি কন্ঠত লাগ

যাবৎ জীবন তাবৎ থাক। (এই মন্ত্র একদমে তিনবার কয়া বই পড়ির বসিলে সহজে পড়া ফম থাকে) 

এবার কথা হৈল্ যে হামরালা তথাকথিত শিক্ষিত হৈলেও কিন্তুক বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রত নিজের আঈ ভাষা ব্যবহার করি বা কওয়া যায় সেলা আঈ ভাষার ফম পড়ে। যেমন ভোটের সমায়, অসুখবিসুখ হৈলে আর টাউন থাকি  গেরামের হাটত যায়া সব্জিহালার মুখ খান দেখি আন্দাজ করি মুখ থাকি আঈ ভাষা বির করি যাতে খানেক কমদামে সব্জি পাওয়া যায়। মানে নিজের দরকারত আঈ ভাষাটাক ব্যবহার (ইংরাজীত যে অর্থে use and through বুঝায় ) কিন্তুক মাওয়ের ভাষার উন্নতির কথা ভাবিনা, যেদু ভাবিলোং হয় নৈজ্যা, ঘিন, সংকোচ কাটেয়া থান কাল পাত্র আরো জাতি ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সৌগ জাগাত আঈ ভাষাত কথা কয়া তার মর্যাদা দিবার চেষ্টা করিলোং হয়। 

জনৈক এক ভাই একদিন কৈচে, সেইটা ফম পড়িল, বিয়াত কৈনা দেখির যায়া উয়ার দেওয়া শর্ত। ” বিয়াত যেদিন কৈনা দেখির গেচুং সেদিন মুই একটা শর্ত দিচুং কৈনাক যে বিয়াওর পর কিন্তুক হামরা আঈ ভাষাতে কথা কমো বাড়িত” কৈনাও রাজি ছিল আর শুভপরিনয় হৈচিল। এই ব্যাপারটা যেদু হামার কৈনালার দিক থাকি আইসে কেমন হয়? কৈনায় চেংরাক কৈবে যে বিয়াওর পর হামরা কিন্তুক আঈ ভাষাতে কথা কমো। হয়ত অদূর ভবিষ্যতত এইনাকান চিন্তা আসিবে সৌগ আঈ ভাষা প্রেমী গাবুর চেংরা চেংরিলার আর উমাক দেখি গোটায় কোচরাজবংশী কামতাপুরী সমাজ এক নয়া দিশা দেখাইবে। 


©🆚

Share this:

Leave a comment

Enable notifications on latest Posts & updates? Yes >Go to Home Page or Non Amp version Page and \"Allow\"