Categories
ABORIGIN ভাষা - বাংলা

রাজবংশী আবেগ ভুলঘাটাত্ পরিচালিত হইলে হামার ক্ষতি হইবে।

রাজবংশী এমন একটা জনসমাজ যার ভাইল্লা বৈশিষ্ট্য আছে, গর্ব করার বিষয় আছে। সেইলা হামা ঠিকমতোন চর্চা করির পাছি তো ?? হামার ইতিহাস, হামার ঐতিহ্য, হামার ভাষা, হামার পরিচয়। পর পর কয়টা ঘটনাত্ জল ঘোলা হয়া গেইছে !! এইলা ঘোলা জলোত মাছ সগায় ধরির চাইবে এলা !! কারো কারো মুখোত্ রাজবংশী দরদ শুনিলে ভরকিও যাবার পান!!

তায় সুচিন্তক রাজবংশী মানষিলারটে মোর আবেদন আরো আটুশ…সউগ সমাই হামার সমাজের উন্নতির চিন্তায় হবে হামার মূল লক্ষ্য। তার বাদে কাঙো হামার শত্রু না হয়। সমস্যটা হইল কিছু কিছু অরাজবংশী মানষি (সগায় না হয়) রাজবংশীর উন্নতিটাক হয়তো মানি নিবার পাবার ধরে নাই। নিজের সংকীর্ণ মানষিকতা নিয়া রাজবংশী মানষিলাক মাঝে মাঝে খোচায়, উত্তেজিত করে, ভুল ঘাটাত যাবার বাদে প্ররোচনা দেয় !!! সগায় সাবধান !!!

এইমতন চেষ্টা কিন্তুক আগের থাকিয়ায় হয়া আসিছে। হামা এলা যথেষ্ট শিক্ষিত। হামা যুক্তি দিয়া, বিচারবুদ্ধির ব্যবহার করি তার উত্তর দিমু। উমার অজ্ঞানতার জাগালাক পূরণ করি দিমু।

রাজবংশী মানষিলা উদার, ইমরা সগাকে #আপন ভাবে, নিজের জমি মানষিক দান করি অইন্য মানষিক বাড়ি বানে দেয়, মানষির দুক্ষত কান্দে, নিজের দুক্ষক পাথর চাপা দিয়া থোয়, কাকো না জানায় !!! এইমতন রাজবংশী মানষিলাক যায় যায় অপমান করে, আক্রমণ করে উমার বিদ্যাবুদ্ধি বোধশক্তি জ্ঞান সম্মানবোধ কৃতজ্ঞতাবোধ এইলা যে কিছুই নাই সেটা দিনের আলোর মতোন পরিস্কার।

রাজবংশী ছাত্রলা আজি বোর্ড 1st হয়। পত্তি বছর মেধাতালিকাত থান পায়। আন্তর্জাতিক খেলাধুলার জগতোত্ #সোনা জেতে। সর্বভারতীয় সঙ্গীত প্রতিযুগিতার মঞ্চত্ থান পায়। ভাইল্লা মেধা হামার আছে এলা। গানবাজনা থাকি শুরু করি খেলাধূলা, বডি বিল্ডিং, সিনেমাজগৎ, পড়াশুনা সউগ ক্ষেত্রত হামা আস্তে আস্তে আগে যাবার ধরিছি। অল্পকিছু সংকীর্ণমনা মানষি এইলা মানি নিবার পাবার ধরে নাই !!! উমরা ভাবে রাজবংশীলাক চিরকাল উমার দাবে রাখিবে !! তার বাদে হামাক মাঝে মাঝে অসম্মান করে, খারাপ ভাষায় আক্রমণ করে।।

এইলা যে নয়া করি শুরু হইছে সেটাও না হয়… এইলার সূচনা মেলাদিন আগোত থাকি। হামা দেখিছি মনীষী পঞ্চানন বর্মাক কেমুন করি অসম্মান করা হইছে !! যোগ্যতা থাকিতেও উপযুক্ত পদ,চাকরি উমাক দেওয়া হয় নাই !!! উপযুক্ত সম্মান দেওয়া হয় নাই !! সারাজীবন উমরা খালি সম্মানের বাদে আন্দোলন করি গেইছেন!!! হামরা এলা সেটার ফসল পাবার ধরিছি। মনীষী পঞ্চানন বর্মা যদি হামাক তপশীলিভুক্ত না করি গেইলেন হয়, যদি হামার এই সাংবিধানিক অধিকার আদায় করির না পাইলেন হয় তাইলে হামরা আজি এতটা আগে যাবার পাইলং হয় কিনা সে বিষয়ে মোর সন্দেহ আছে। পঞ্চানন বর্মা হামার একটা মাইলস্টোন।

পঞ্চানন বর্মার পরবর্তী সময়ে হামার কোন যোগ্য নেতা তৈয়ার হয় নাই। যেটা হইছে সেটা আবেগ নির্ভর নেতা। একবার এপাখে তো আর একবার ওপাখে !!! এই আবেগ কিন্তুক সউগ না হয়। আবেগটাক যদি কাঙ সঠিক পাখে, গঠনমূলকভাবে আগে নিয়া যাবার না পায় তাইলে সেটা হবে ধ্বংসাত্মক। নেতার ভূমিকা এটিখোনায়।

মোর মনে হয় রাজবংশী মানষিলা এলাও সংগঠিত হবার পায় নাই। এই অসংগঠিত অবস্থায় যদি খালি আবেগ নির্ভর কোন আন্দোলন হয় তাইলে যে কাঙ সেই আবেগটাক কাজে লাগের চাইবে একান্ত নিজের মতোন করি। তাতে হামার জাতির ক্ষতি হবে। তায় সগারেঠে মোর আবেদন আরো আটুশ সগায় সচেতন থাকেন। ভাবি চিন্তি ঠ্যাঙ ফেলান। নিজের বিদ্যা বুদ্ধি দিয়া আগোত মানুষ চেন। কার কতোটা আবেগ জন্মগত আর কার কতোটা লোক দেখানো সেইটা উপলব্ধি করো। মোর ব্যক্তিগত মত খালি রাজবংশী মানষিলাক নিয়া আলাদা দল গঠনের মতো জাগাত হামা এলাও যাই নাই। দল গঠনের পরের দিনেই দেখিবেন দল ভাগ হয়া গেইছে !! জাতির প্রতি কতোটা দরদ আছে আগোত সেইটার প্রমাণ হউক। পঞ্চানন বর্মার মতো নেতৃত্ব তৈয়ার হউক।।

তাই বুলি কি হামরা এলা বসি থাকিমু ??? না… হামার ভাইল্লা কাজ আছে। নিজের সংস্কৃতি চর্চা হামাক নিজেকে করির নাগিবে, হামার ভাষার চর্চাও হামাকে করির নাগিবে, হামার ঐতিহ্যের প্রচার হামাকে করির নাগিবে, হামার ইতিহাস নিয়া আলোচনা হামরায় করিমু, হামার মেধালাক তলতি ধরিমু। আর সউগ সরকারঠে হামার এই দাবিলা করিমু।

সগায় ফম থোন আগপাকে আছে ২০২১ এর মাথাগনতি (জনগননা ২০২১)। এই মাথাগনতিত হামার ভাষার নাম একটা করির নাগিবে। একে ভাষার দুইটা নাম নিয়া কাউটাল না হয়। হামার ভাষা একটা হামাক একটা নাম নাগে। আর এই মুহূর্তে হামার এইটায় পধ্যান দাবি। ২০২১ মাথাগনতিত যাতে হামরা সগায় মিলি একটা নাম লেখের পাই। হামার ভাষাত মোট কত মানষি কাথা কয় সেইটা হিসাব সরকারি খাতাত তুলির পাই।

হামার দাবি হামার ভাষার (একটায় নাম) স্বীকৃতি।
হামার ভাষার সাংবিধানিক স্বীকৃতি হামাক নাগিবেকে।

কাউলিয়া: রতন বর্মা।

View All Postsআপনিও পোস্ট করুনAdvertise your Product or Service
Share this:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

25 Views