abhayapuri royal family

অভয়পুরী রাজপরিবার, বঙ্গাইগাও। Abhayapuri Royal Family

বিজনী রাজবংশ এর শাখা অভয়পুরী রাজপরিবার, জেলা-বঙ্গাইগাও / Abhayapuri Royal Family – Bongaigaon

Mridul Narayan
Kumar Mridul Narayan

কুচবিহার রাজবংশ এর পরিধি এবং ব্যাপ্তি  কত বড় ছিল তা যদি আজ অনুসন্ধান করি এর শেষ কোথায় তা আমরা সঠিকভাবে বলতে পারবো না। এই রাজবংশের সঙ্গে  আত্মীয়তার সূত্রে ভারতবর্ষের বিভিন্ন প্রান্তের সঙ্গে যেমন যোগাযোগ ছিল, তেমনি প্রতিবেশী দেশ, ইউরোপিয়ান দেশের সঙ্গে বৈবাহিক সম্পর্ক ছিল। বঙ্গাইগাও (Bongaigaon) জেলার অভয়পুরী রাজপরিবার (Abhayapuri Royal Family) তেমনি একটি শাখা। অভয়পুরী রাজপরিবার হল বিজনী রাজবংশ (Bijni Royal Family) এর শাখা। 

সুদূর ইংল্যান্ড, কাশ্মীর, নেপাল, গৌড়, কুন্ডি, ঔরঙ্গাবাদ, মহেন্দ্রগঞ্জ, জয়পুর, দেওয়াস, কোটা, আসাম, ত্রিপুরা কোথায় নেই এ রাজবংশের যোগসুত্র। আজ যোগাযোগ ও আত্মীয়তা কোথাও আছে কোথাও নেই। এত বড় এই রাজবংশের মূল শিকড় কুচবিহারকে কেন্দ্র করেই যেমন সৃষ্টি হয়েছিল, তেমনি এর পরিধি বেড়ে ছিল। এটাকে কালের নিয়ম বলবো না ইতিহাসের নিষ্ঠুর পরিহাস আজ সৃষ্টিকর্তাকেই অবজ্ঞা, উপেক্ষা বা অবহেলা করার একটা অপচেষ্টা চলছে। সত্যিই পন্ডিত ম্যাক্সমুলার ঠিকই বলেছেন—

“যে জাতি তার অতীত ইতিহাস সম্বন্ধে অজ্ঞ, সেই জাতির উন্নতি অসম্ভব।”

অভয়পুরী রাজপরিবার / Abhayapuri Royal Family

কুচবিহার রাজবংশের শাখা বিজনী রাজপরিবারের একটি অংশ বা শাঁখা হলো অভয়পুরী রাজপরিবার। বঙাইগাঁও জেলার জেলা সদর থেকে ২২ কিলোমিটার দূরে পাহাড় এবং প্রকৃতি পরিবেষ্টিত শান্ত, পরিচ্ছন্ন অভয়পুরী টাউনে অভায়াপুরি রাজবাড়ী অবস্থিত। এই রাজবাড়িতেই থাকেন পরিবারের সদস্যরা। রাজবাড়ী এবং রাজবাড়ির সম্পত্তি সবটাই এই পরিবারের ব্যক্তিমালিকানাধীন।

অভয়পুরী এত সুন্দর ছোট্ট একটি সাজানো শহর, রাস্তার দুইধারে সাজানো দোকান, আঁকাবাঁকা পথ ঘাট, পাহাড়ের টিলা, সারিবদ্ধ ফরেস্ট সমৃদ্ধ এই শহর একবার ঘুরে আসলেই বারবার আসতে ইচ্ছে করবে। এখানকার ইতিহাসও খুব সমৃদ্ধ। বিজনী রাজপরিবার এর এটি ছিল তৃতীয় রাজধানী। ভুটানের মেচ সর্দার আক্রমণ, ভূমিকম্পের ফলে বারবার রাজধানী পরিবর্তন করেছিল বিজনীর শাসকরা। রাজা মুকুন্দ নারায়ণের সময় তাদের নিয়ন্ত্রণে থাকা মেচপাড়া, চাপর পরগনা আলাদা হয়ে যায় এবং তারা নিজস্ব জমিদারি গ্রহণ করে। 

raja kumud narayan
Raja Kumud Narayan

রাজা অমৃত নারায়ণের দত্তকপুত্র রাজা কুমুদ নারায়ন (কুচবিহারের মহারাজা নৃপেন্দ্র নারায়ন এর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল ) সাময়িকভাবে এই পরিবারের পারিবারিক এবং অর্থনৈতিক বিষয়গুলি নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করলেও তিনি সফল হননি।মহারাজা নৃপেন্দ্র নারায়ন ভূপবাহাদুর তাকে যথেষ্ট সহযোগিতাও করেছিলেন। শেষে রাজা কুমুদ নারায়ন (Raja Kumud Narayan) আত্মহত্যা করেন। রাজার অকাল প্রয়াণে তাঁর স্ত্রী রানী অভয়েশ্বরী (Rani Abhayeswari) রাজকার্য পরিচালনার দায়িত্ব নেন। তিনি দীর্ঘদিন সাফল্যের সঙ্গে রাজকার্য পরিচালনা করেন। তার সময়ে “দেওহাটি” বনাঞ্চলে রাজধানী স্থানান্তরিত করা হয় ১৯০১ সালে। যা পরবর্তীতে তার নামানুসারেই অভয়পুরী নামকরণ করা হয়। আর রাজবাড়ীও তার নামেই প্রতিষ্ঠিত।১৯৫৬খ্রিস্টাব্দে শেষ রাজা রবীন্দ্র নারায়ণের শাসনকালে এই ছোট রাজ্যটি ভারত ইউনিয়নের সঙ্গে যোগ দেয়।

রাজ্য শাসন ক্ষমতা না থাকলেও কুচবিহার রাজবংশের শাখা বিজনী রাজপরিবারের তৃতীয় রাজধানী অভয়পুরীর ইতিহাস এখনো বর্তমান। ঐতিহাসিক সম্পদ ও নিদর্শনগুলি এখনো গবেষকদের কাছে অমূল্য সম্পদ। এই পরিবারের দুই একজনের সঙ্গে ব্যক্তিগত যোগাযোগ থাকলেও, যোগসূত্রের মেলবন্ধন ও অতীতের স্মৃতিচারণা করে অনেক জান অজানা কিছু জানার চেষ্টা করেছি। তাদের পারিবারিক কিছু instruction  থাকায় কিছু ছবি social media য় দিতে পারলাম না। সময় কম থাকায় এই পরিবারের অনেক ইতিহাস বিজড়িত জায়গা দেখার অসম্পূর্ণ থেকে গেল। সময় হলে আবার কোন দিন আসবো। আপনারা একবার ঘুরতে আসুন, ভালো লাগবে।

আরো পড়ুন

বিজনী রাজপরিবার, চিরাং জেলা। Bijni Royal Family 

Leave a Comment

Your email address will not be published.