কোচবিহার

কোচবিহারের মহারাজা নৃপেন্দ্রনারায়ণের মৃগয়া কাহিনী (1871-1880)

রাজা মহারাজা দের জঙ্গলে শিকার করা নতুন কিছু নয় ভারতের সমস্ত রাজপরিবারের রাজা মন্ত্রী দের এই অভ্যাস ছিল। আজকাল পশু শিকার করা দন্ডনীয় অপরাধ। কোচবিহারের মহারাজা নৃপেন্দ্রনারায়ণও তার ব্যতিক্রম ছিলেন না, It was Big Game Shooting. প্রতি বছর ঘটা করে শিকারে বেরোতেন কোচবিহার, ডুয়ার্স আর আসামের জঙ্গলে। সাধারনত ফেব্রুয়ারি মাসকেই বেছে নিতেন বাৎসরিক সুটিং শুরু …

কোচবিহারের মহারাজা নৃপেন্দ্রনারায়ণের মৃগয়া কাহিনী (1871-1880) Read More »

“গোসানীমঙ্গল” কাব্যগ্রন্থ সম্পর্কে কিছু তৈথ্য।

কোচবিহারের রাজসভার বাইরাতেও মেলা কবি সাহিত্য রচনা করিছিলেন যেগুলা আইজকাল আর খুব এখনা পাওয়া যায়না। সেইনাকান করি “গোসানীমঙ্গল” রচিত হয় মহারাজা হরেন্দ্রনারায়ণের আমলত আর তা রচনা করেন রাধাকৃষ্ণ দাসবৈরাগী। 1899 সালত এই পুথিখান বই আকারে বির করেন গোসানীমারি স্কুলের হেডমাস্টার শ্রী ব্রজচন্দ্র মজুমদার। শ্রী ব্রজচন্দ্র মজুমদার এই বইখান বির করির কারন হিসাবে বিজ্ঞাপনের জাগাত যা …

“গোসানীমঙ্গল” কাব্যগ্রন্থ সম্পর্কে কিছু তৈথ্য। Read More »

কোচবিহারের মহারাজা হরেন্দ্রনারায়ণের পন্ডিতসভা ও সাহিত্যকীর্তি।

মহারাজা হরেন্দ্রনারায়ণের রাজত্বকালকে কামতা সাহিত্যের সুবর্ণযুগ বলা যায়। কোচবিহার রাজ্য বাংলা থেকে তখন পৃথক ছিল। ষোড়শ শতাব্দী থেকে কামতা সাহিত্য চর্চা হত এই রাজদরবারে। অষ্টাদশ শতাব্দীর শেষভাগ থেকে ঊনবিংশ শতাব্দীর প্রথমভাগ মহারাজা হরেন্দ্রনারায়ণের রাজসভা মূলত একটি পন্ডিত সভায় পরিনত হয়েছিল। অনুমান করা হয় এত বড় মাপের পন্ডিত সভা সম্ভবত ইতিহাসে আর কোনো রাজসভায় দেখা যায়নি। …

কোচবিহারের মহারাজা হরেন্দ্রনারায়ণের পন্ডিতসভা ও সাহিত্যকীর্তি। Read More »

রাসচক্র নির্মাতা আলতাফ মিঞা দের দিকে তাকানোর কেউ নেই।

আর কয়েকদিন পরেই কোচবিহারের ঐতিহাসিক এবং ঐতিহ্যবাহী রাসমেলা শুরু হতে চলেছে।   1812 সালে কোচবিহারের মহারাজা হরেন্দ্রনারায়ণ সর্বপ্রথম রাসযাত্রা চালু করেন।  1773  সালে স্বাধীন কোচবিহার রাজ্য ব্রিটিশের করদমিত্র রাজ্যে পরিনত হওয়ার পর 1785 সাল পর্যন্ত নাজির দেও খগেন্দ্রনারায়ণ রাজ্য পরিচালনা করেছিল ব্রিটিশের তত্ত্বাবধানে। মহারাজা হরেন্দ্রনারায়ণ সম্পুুর্ণরূপে রাজ্যের দায়িত্ব ভার গ্রহন করেন 1801 সাল নাগাদ। তার পরে …

রাসচক্র নির্মাতা আলতাফ মিঞা দের দিকে তাকানোর কেউ নেই। Read More »

পৃথক রাজ্য “উত্তরবঙ্গ” নামে কোনো যুক্তি আছে?

পৃথক রাজ্য সত্বা “উত্তরবঙ্গ রাজ্য” নাম নিয়ে আজকাল বেশ চর্চা হচ্ছে। কিন্ত সেটা এই সন্ধিক্ষণে কেন? স্বাধীনতার পর থেকে গ্রেটার কোচবিহার বা কামতাভূমি সর্বদিক দিয়ে বন্চিত আর সব থেকে বন্চিত এখানকার রাজবংশী /কামতাভাষী ভূমিপূত্ররা।এতদিন পর্যন্ত এই ভূমির বাঙালী সম্প্রদায়কে আলাদা রাজ্য নিয়ে তেমন উচ্চবাচ্য করতে দেখা যাইনি যাদের বেশীরভাগই দেশভাগের পর এবং পরবর্তীতে বাংলাদেশ গঠন …

পৃথক রাজ্য “উত্তরবঙ্গ” নামে কোনো যুক্তি আছে? Read More »